গোপন বাক্স (সিক্রেট অফ ক্যাসকেট)

মূল গল্পঃ চিনের একটি প্রচলিত গল্প


অ্যাহ লিং বৃদ্ধা মহিলার ৭৫তম জন্মদিনের দিন তাঁর চার পুত্রদেরকে বললেন তিন মাস করে প্রত্যেকের ঘড়ে থাকবে খাবে। প্রথম মাসে তিনি তাঁর বড় পুত্রের কাছে থাকার জন্য মনস্থ করলেন, কয়েক দিন গেলে তাঁর পুত্র এবং পুত্রবধূ বৃদ্ধার সাথে ভালো ব্যবহার করলেন, ঠিকমতো সেবাযত্ন ও করল না। মাকে খাওয়াতে তাঁদের খরচ বেশি লাগে এই কথা বলতে লাগল। পরবর্তীতে দ্বিতীয় পুত্রের কাছে আসলেন, দ্বিতীয় পুত্রও বৃদ্ধার সাথে একই রকম ব্যবহার করল। এমন ভাবে সকল পুত্রই বৃদ্ধাকে অবহেলা করতে লাগল এবং খরচ বেশি যায় সেই জন্য তাঁদের মাকে ভরন-পোষন দিতে পারবে না।

একদিন অ্যাহ লিংয়ের বান্ধবী জিং মেই তাকে দেখতে আসল, এবং কেমন আছে জানতে চাইল, বৃদ্ধা তাঁর করুন অবস্থার কথা জানাল এবং পুত্ররা তাকে অবহেলা করে ভালোবাসে না  কাঁদতে কাঁদতে তা বলল। কয়েক দিন পর অ্যাহ লিং বৃদ্ধা তাঁর কিছু পোষাক এবং একটা ছোট বাক্স নিয়ে বাড়ি থেকে বের হচ্ছিলেন। তা দেখে তাঁর ছোট ছেলে দেখে জিঙ্গেস করলঃ কোথায় যাচ্ছ?

-তা তোমাদের কাছে বলতে বাধ্য নই!
-ছেলে ছোট বাক্সটির দিক লক্ষ করল, এবং বললঃএই বাক্সের ভিতর কি আগে তো কখনো দেখি নাই?
-এই বাক্সের ভিতর এমন কিছু যা আমাকে স্বাচ্ছন্দ্য ভাবে জীবন যাপন করতে সাহায্য করবে।

ছোট ছেলে দেরি না করে তাঁর অন্যান্য ভাইদের খবর জানাল,এবং এই গোপন বাক্সের কথা বলল। অন্যান্য ছেলেরা বাক্স খুলতে চাইলে অ্যাহ লিং বলল আমার মৃত্যুর পর তোমরা এই বাক্স খুলতে পাবে। ছেলে ও তাঁর স্ত্রীগন ভাবল মাকে যেতে দেয়া যাবে না, তাহলে অন্য কেউ এই মূল্যবান বাক্স পেয়ে যাবে। তাই সকল ছেলেই তাঁর মাকে নিজস্ব ঘড়ে থাকার জন্য অনুরোধ করল। কিন্তু অ্যাহ লিং সেই আগের মতো প্রত্যেকের ঘড়ে তিন মাস করে থাকার ব্যবস্থা করল। সকল ছেলে ওর তাদের স্ত্রীগন অ্যাহ লিং কে খুব আদর সেবা যত্ন করত। অ্যাহ লিং যখন তার কক্ষে থাকত না তখন তাঁর ছেলেগন বাক্স খোলার জন্য চেষ্টা করত কিন্তু তা  ব্যর্থ হত। অ্যাহ লিংয়ের যখন ৮৪ বছর তখন তিনি মারা যান। জিং মেই যখন জানতে পারলেন তাঁর বান্ধবী মারা গেছে তখন বাড়িতে এসে ছেলেদের কাছে গোপন বাক্সের চাবি দেয়। ছেলেগন খুব খুশি হয়ে দেরি না করে অ্যাহ লিংয়ের কক্ষে প্রবেশ করে, এবং বলে এই বাক্সের চাবির জন্য আমরা কত্ত বছরের পর বছর অপেক্ষা করেছি আজ আমাদের স্বপ্ন পূরন হতে চলছে। যখন বাক্স খুলল, বাক্সের ভিতর কিছু কাচের গুড়া দেখতে পেল, দেখে তারা হতাশ হয়ে গেল।

অ্যাহ লিংয়ের বিছানার উপর একটি চিঠি দেখতে পেল, এক ছেলে চিঠি খুলল, চিঠিতে লেখা ছিল- তোমরা নিশ্চই এমন টা আশা কর নাই? ভাবছিলে খুব তাড়াতাড়ি ধনী হয়ে যাবে? তা কি করে সম্ভব বল? গাছ না লাগিয়ে তাঁর থেকে ফল আশা করাটা বোকামি ছাড়া কিচ্ছু না। তোমদের জন্য আমার শেষ উপদেশ, নিজে কিছু করার চেষ্টা কর আর গুরুজনদের শ্রদ্ধা কর যে যার প্রাপ্য তাকে তা দাও। তাহলে নিজেরা সুখি অন্যকে ও সুখি রাখতে পারবে।


আমাদের উৎসাহিত করুনঃ




সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। এই লেখাটি কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয় ।

লেখক সম্পর্কেঃ

বুনন সম্পর্কিত তথ্যঃ