চিনি ও পিপড়া | তাছনীম বিন আহসান

(গল্পটা প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য)

একদেশে ছিল অনেক চিনি। তারা কিন্তু চিন দেশের না। তারা চিনি, আখের রসের চিনি। মিষ্টি চিনি। অনেক চিনির মাঝেও অনন্যা একজন চিনির গল্প আজ আপনাদের বলবো। সে দেখতে খুব সুন্দরী ছিল। স্বচ্ছ স্ফটিকের মত। আর অনেক অনেক অনেক মিষ্টি।
একদিন সেই চিনি ঠিক করলো সে ঘুড়তে বের হবে। দেশ থেকে দেশান্তরে সে ঘুরবে। যেই ভাবা সেই কাজ। সে বেরিয়ে পরলো। এখানে ওখানে ঘুরতে ঘুরতে সে পৌছালো বিরাট মাঠের প্রান্তে। প্রচন্ড রোদে চিনি প্রায় গোলেই যাচ্ছিল। হঠাত সেখানে কোথা থেকে একটা পিপড়ে এসে পরলো। চিনিতো ভয়েই শেষ। এই বুঝি পিপড়ে তাকে খেয়ে ফেলবে। চিনি চিৎকার করে উঠলো
“খবরদার আমার কাছে আসবেনা!”
পিপড়ে শান্ত স্বরে বললো
“ভয় পেওনা, আমি তোমার কোন ক্ষতি করবোনা। তোমায় রোদ থেকে বাচিয়ে ছায়ায় নিয়ে যাই চলো। এই রোদে থাকলে নিশ্চই তুমি গোলে যাবে।”
পিপড়ের কথা বলার ধরনটা এমন দৃঢ় ছিল যে চিনি না বলতে পারলোনা। পিপড়ে তাকে নিজের বাড়িতে নিয়ে গেল। পিপড়ের ঘরে ছায়ায় চিনি যেন প্রান ফিরে পেল। পিপড়ে তাকে তার ঘরের সবচেয়ে ভালো যায়গাটা দিল।
দুপুর গরিয়ে বিকেল হবার পর চিনি বললো
“আমি এখন চলে যাবো, আমার অনেক দূরে যেতে হবে, অনেক দেশ দেখতে হবে।”
পিপড়ে বললো
“কিন্তু সামনেতো অনেক বিপদ সংকুল পথ। অনেক দুষ্ট পিপড়েরা থাকে সেখানে। তুমি একা একটা সুন্দরি চিনি কি করে যাবে, চলো আমি তোমাকে কিছুটা এগিয়ে দিয়ে আসি।”
চিনি রাজি হয়ে গেল পিপড়ের প্রস্তাবে।
এদিকে হয়েছে কি পিপড়ে কিন্তু মনে মনে চিনিকে ভালোবেসে ফেলেছে। কিন্তু সেটা প্রকাশ করার সাহস পাচ্ছেনা, পাছে চিনি তাকে খারাপ মনে করে সেই ভয়ে।
তো যা হোক, তারা দুজনে পথ চলতে শুরু করলে। পিপড়ে সারাক্ষন চেষ্টা করে চিনির যেন কোন কষ্ট না হয়। সে যেভাবে পারে চিনিকে সাহায্য করে। এভাবে চলতে চলতে রাস্তায় কিছু দুষ্ট পিপড়ের সাথে দেখা হয়ে গেল। তারা চিনির দিকে লোলুপ দৃষ্টিতে তাকালো, জোর করে তাকে নিয়ে যেতে চাইলো, কিন্তু ভালো পিপড়েটা তাদের সাথে রিতিমত যুদ্ধ করেই চিনিকে বাঁচালো।
তারপর তারা আবার পথ চলতে আরাম্ভ করলো। বেশ কয়েকদিন চলার পর তাদের আবার কিছু দুষ্ট পিঁপড়ের কবলে পরতে হলো। দুষ্ট পিঁপড়ে গুলো বিভিন্ন ধরনের মিষ্টি মিষ্টি কথা বলে চিনি পটানোর চেষ্টা করলো। ভালো পিঁপড়ে টা চিনিকে খুব সুন্দর করে বোঝালো যেন ওদের কথায় না ভোলে। আরো বললো যে মিষ্টি মিষ্টি কথায় ভুলিয়ে চিনিকে নিয়ে গিয়ে ওরা খেয়ে ফেলবে। কিন্তু কে শোনে কার কথা। চিনি ভালো পিপড়েটার সব উপকারের কথা ভুলে গিয়ে, পিপড়ের মনের গভীর ভালোবাসা না বুঝে, পিঁপড়ের উপদেশ না শুনে সেই দুষ্ট পিঁপড়ে দের সাথেই চলে গেল। ভালো পিঁপড়ে টা বাধা দেয়ার চেষ্টা করলো কিন্তু কোন লাভ হলোনা।
তারপর সেই দুষ্ট পিঁপড়ে গুলো চিনিকে নিয়ে গিয়ে খেয়ে ফেললো।

;(

#তাছনীম