মিষ্টি ভালোবাসা

যাকে আমি নিজের চাইতে বেশি ভালবাসি।কিন্তু তার সাথে এখনো আমার সরাসরি দেখা হয় নি আমি ওর ছবি দেখেছি আর সে আমার ছবি দেখেছে।মেয়েটির সাথে আমার ফোনে পরিচয় হয়েছে, (তাহলে ওর পরিচয় দেওয়া যাক,ওর নাম হচ্ছে ওয়াহিদা,ইন্টার সেকেন্ড ইয়ারে পড়ে আর আমি জাকারিয়া অনাস সেকেন্ড ইয়ারে পড়ি)
এখন ঘটনায় আশা যাক।
ওর সাথে যেদিন আমার প্রথম ফোনে কথা হয়, সেদিন আমার এক কাজিন কে কল দিতে গিয়ে রংনাম্বারে একটা মেয়ের ফোনে কল ঢুকে যায়। রিং হওয়ার সাথে সাথে কল রিসিভ করা হয়।
হ্যালো কে বলতেছেন (ওয়াহিদা)
(কথাটা শোনার সাথে সাথে আমি মেয়েটির কন্ঠের উপর ক্রাস খেয়ে গেলাম।এত সুন্দর একটা মেয়ের কণ্ঠ হতে পারে আমার জানা ছিল না।)
আমি কোনো কথা বলতে পারলাম না।
এক পর্যায়ে মেয়েটি বিরক্ত হয়ে কল কেটে দিল।
কিন্তু আমি হাল ছাড়ার পাত্র নই।
আমি আবার কল দিলাম
হ্যালো (আমি)
এইযে আপনার সমস্যা কি? কল দিয়ে আবার কথা বলেন না। আপনার পরিচয় দিন। (ওয়াহিদা)
আরে আপনে আমাকে ছিনবেননা,আমি ও আপনাকে ছিনিনা,তবে আমার মনে হয় আজ থেকে ভাল করে ছিনে যাব।( আমি)
হাহা তাই নাকি,আমি অপরিচিত কারো সাথে কথা বলি না,বলেই ফোন কেটে দিল(ওয়াহিদা)
তার পর আমি অনেক বার কল দিয়েছি কিন্তু কল ঢুকে না,কারন আমার নাম্বার ব্লক লিষ্টে পাটিয়ে দিয়েছে।
কিন্তু ওর সাথে আমাকে কথা বলতেই হবে না হলে আমি পাগল হয়ে যাব,কারন আমি ওর প্রেমে পড়ে গেছি।আজ সারা দিন শুধু অকেই কল দিয়েছি কিন্তু কোনো ভাবেই কল ঢুকতেছে না।হঠাং করে মাথায় একটা বুদ্ধি আসলো,যেই ভাবা সেই কাজ।
ওর নাম্বার টা সেইভ করতেই ওয়াটসআপ্যায়ে ফেয়ে গেলাম।সাথে সাথে ওকে টেক্সট দিলাম।
সে অনলাইনে থাকায় সাথে সাথে রিপ্লে করলো। এবং সে আমার পরিচিয় যানতে চাইলো।আমি আমার সমপর্কে সব কিছু বললাম।
তার পর আমি ওয়াহিদাকে বললাম আমি তোমার সাথে ফ্রেন্ডশিপ করতে চাই।কিন্তু সে কিছু তেই রাজি ছিল না।আমিও হাল ছাড়ার পাত্র নই।আমি পুরো দুদিন চেষ্টা করার পর ওয়াহিদা আমার সাথে বন্ধুত্ব করতে রাজি হলো,আমাকে আর পায় কে ফ্রেন্ডশিপ ছিল বাহানা কারন আমি তো তাকে ভালবেসে ফেলেছিলাম তাই ভাবলাম আগে বন্ধুত্ব করি।
অফ! অনেক কষ্টের পড় ওয়াহিদার সাথে আমার বন্দুত্ব হলো।
তার পড় থেকে ওয়াহিদার সাথে আমার সব সময় কথা হতে থাকে সে সব সময় আমার খোজ খবর নিত কি করতেছি খেয়েছি কিনা,এক কথায় তার সাথে আমার সারা দিন সারা রাত কথা হতো।
আমি সব সময় ওকে কল দিতাম শুধু তার মিষ্টি কন্ঠ শোনার জন্য। ওর সাথে কথা না বললে আমার মনে হতো আমি পাগল হয়ে যাব।
অবশেষে ভাবোলাম যে ভাবেই হোক ওকে প্রপোজ করতে হবে।তাই আর দেরি করা ঠিক হবে না।
,,,,,,,এই তোমার সাথে আমার একটা জরুরি কথা ছিল (আমি)
,,,,,,,হুম বলো (ওয়াহিদা)
প্রথম যেদিন তোমাকে কল দিয়েছিলাম,তখন তোমার মিষ্টি কন্ঠ শোনে আমি তোমাকে ভালবেসে ফেলেছি,আমার জীবন চলার প্রতিটি সময় তোমাকে আমার পাশে চাই হবে কি আমার জীবন সাথী? (জাকারিয়া )
,,,,,,,,,তাই নাকি? মনে কর যুদি আমি আমার কন্ঠের মতো সুন্দর না হই তা হলে (ওয়াহিদা)
আরে পাগলি আমি তো তোমার চেহারার প্রেমে পড়িনি আমি তোমার প্রেমে পড়েছি।তুমি যেই রকমি হওনা কেন আমার শুধু তোমাকেই চাই (জাকারিয়া )
,,,,আরে গাধা তা হলে প্রপোজ করতে এতো লেইট করলা কেন (ওয়াহিদা)
,,,,,,তার মানে তুমি আমাকে ভালবাস। আই লাভ ইউ পেত্নি,তোমাকে অনেক অনেক বেশি ভালবাসি( ওয়াহিদা)
,,,,,,,আমিও তোমাকে খুব বেশি ভালবাসি জাকারিয়া ( ওয়াহিদা)
তাহলে চল আমি তোমার প্রেত হয়ে আর তুমি আমার পেত্নি হয়ে দুজনে বাসা বাধি গাছের মগ ডালে।লাভ ইউ পেত্নি (জাকারিয়া)
,,,,,,লাভ ইউ প্রেত (ওয়াহিদা)


আমাদের উৎসাহিত করুনঃ




সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। এই লেখাটি কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয় ।

লেখক সম্পর্কেঃ

বুনন সম্পর্কিত তথ্যঃ