‘নেশা’

এই শহরের বুকে আজো কিছু মানুষ ঠাঁয় দাঁড়িয়ে আছে। যাদের আপনি নেশাখোরও বলতে পারেন; যদিও তাঁরা সিগারেট, মদ, ড্রাগস এসবের নেশায় মাতাল নয়। অন্য নেশায় মত্ত তাঁরা; যে নেশার তীব্রতা কেবল তীব্র থেকে তীব্রতর হয়ে উঠে।

এই নেশাখোরদের কেউ শুধু মাত্র আকাশ দেখবে বলে বাসে ট্রামে চড়ে পা হেঁটে মাইলের পর মাইল অতিক্রম করে দিতে পারে।

তারার সাথে ভাব জমিয়ে ক্ষনিকেই রাতটাকে ভোরে এনে দাঁড় করিয়ে দিতে পারে ।

বৃষ্টির টানে আন্দোলিত হয়ে জ্বরে পুড়ে যাওয়া গা নিয়েও টানা ভিজে যেতে পারে।

গানের রাজ্যে গা ভাসিয়ে কল্পনার রাজ্যে ভেসে বেড়াতে পারে একাকী।

ছোট্ট শিশুটির নিষ্পাপ চোখ জোড়ার দিকে তাকিয়ে হারিয়ে যেতে পারে দূর অজানায়।

বইয়ের কোণে মুখ গুঁজে পরে থাকতে পারে দিনকে দিন।

অন্ধকারে নিজেকে নতুন করে আবিষ্কারের বৃথা চেষ্টা চালিয়ে যেতে পারে।

শুধু এক টুকরো কাগজ আর কলমের ছোঁয়ায় নতুন স্বপ্ন বুনে যেতে পারে মাসের পর মাস বছরের পর বছর।

বাতাসটাকে আরো একটু সহজেই আলিঙ্গন করবে বলে খুব সহসাই রেলিং এর উপর নির্দিধায় দাঁড়িয়ে থাকতে পারে।

অন্যের চোখের জল মুছাতে একটা পাত্র হয়ে যেতে পারে।

জীবনের রোড পারি দেবার একটা বিশ্বস্ত হাত হয়ে পাশে থাকতে পারে।

কারো মুখে হাসি ফুটানোতে একেকটা জীবন বেহিসেবী ভাবে কাটানোর কথা ভাবতে পারে ।


আমাদের উৎসাহিত করুনঃ




সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। এই লেখাটি কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয় ।

লেখক সম্পর্কেঃ

বুনন সম্পর্কিত তথ্যঃ