অরন্যে রোদন

অদ্ভুত এ জগত সংসার,
বিশৃঙ্খল নীতি,
অপূরনীয় চাওয়া-পাওয়া
হেয়ালী জনশ্রুতি।

একক রাজত্ব্যে আজ কার আগমন
মানতে চায় না এ মন
কদিন আগেও যে মনে ছিল হাজারো চাওয়া,
আজ কেন তা হারিয়ে গেল,
কোন অধমের ধাওয়ায়?
এ অবেলায় তার আগমন
মানতে চায় না অবুঝ মন।

একক ভোগের অধিপতির আঙিনায়
নিকশ কালো রেখা,
সিক্ত আঁখি দুটি তে
আজ এ কোন অব্যক্ত বেদনা,
ব্যথা বুঝে না কেউ
ছোট্ট মনের আকাঙ্খা।

জড় খেলনাগুলো এখন কোথায় কে জানে
হয়তো বা ঠাই পেয়েছে
পাড়ার কোন এক ডাস্টবিনে,
এগুলো নিয়ে আর খেলে না সে,
মাতে না দুষ্টুমির অগাড় আনন্দে।

মায়ের পাশে শুয়ে থাকা
দু দিন এর ভাইটি
এ কেমন জঞ্জাল,
ঠাঁই করেছে কিনা প্রিয় স্থানটি।
আকস্মিক ক্রন্দন,
বুঝিয়ে সে দেয়,
আমার কি একটুখানি ঠাঁই,
অসীম ধরনী তে নাই,
আজ তার জ্বালাতন বেড়েছে হায়
আপন ভাই কে মায়ের ভাগ দিতে নাহি চায়।

ব্যথাতুর আঁখি,
ক্রন্দনরত নিষ্পাপ মুখ
যত দেখি তত খঞ্জনা বিদ্ধ হয় বুক,
আগের মত কেউ তাকে বাসে না ভালো,
ছোট ভাই খানি কেড়েছে সব আলো,
আজ যেন সে শুনতে পায় ডাকিনীর সুর,
এই বুঝে দিবে পাড়ী অনন্ত অগস্ত দূর।

মা যে আজ অসহায়
বোঝে তো সবই,
নাড়ী ছেড়া প্রানটি যে
তাকে দিয়েছে সবই।

মা এখন তার কাছে মিথ্যা মায়াবিনী,
চিরচেনা মুখটিকে চিনেন না তিনি।

সাকিব মাহমুদ সুহৃদ
৮ম ব্যাচ


আমাদের উৎসাহিত করুনঃ




সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। এই লেখাটি কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয় ।

লেখক সম্পর্কেঃ

বুনন সম্পর্কিত তথ্যঃ