বাস্তবতার আড়ালে মানবিকতা

আজকাল সম্পর্কগুলো কেমন যেন আত্মকেন্দ্রিক হয়ে গেছে। সম্পর্কগুলোর দুইপ্রান্তে যেন এখন কোনো মানুষ দাঁড়িয়ে নেই, দাঁড়িয়ে কেবল স্বার্থ। ‘নাই, চাই’ এই দুইটা শব্দ এমনভাবে গ্রাস করে ফেলছে সম্পর্কের মাঝে সুপ্তাবস্থায় থাকা নিষ্পাপ, পরিশুদ্ধ অনুভূতিগুলোকে যেন ত্যাগ, মানিয়ে নেয়া এইগুলো এখন শুধু বইতে পড়া শব্দ তালিকায় আটকে পরেছে। ‘গিভ এন্ড টেইক’ সিস্টেম বললেও ভুল বলা হবে না বোধহয়। অনেকটা যেন নিচের এই সংলাপগুলোর মত:

: বাবা, আমার টাকা লাগবে।
: আচ্ছা, তুই ভালো আছিস তো?
: হুম, ভালো। রাখি এখন ব্যস্ত।

: কি করছিস রে মা?
: আমি কাজ করছি এখন যাও।
: আচ্ছা খেয়ে তারপর কর যা করার।
: প্লিজ মা তুমি যাওতো ….
কিছুসময় পর
: মা, ও মা! তুমি কি করো? খেয়েছো তুমি?
: আচ্ছা কি লাগবে সেটা বল(মুচকি হেসে)
: না মানে ফ্রেন্ডদের সাথে বের হবো তাই টাকা লাগবে তুমি বাবাকে রাজি করাও না প্লিজ….
: ও সে কথা! আচ্ছা দেখি পারি নাকি।
: লাভ ইউ মা….

: এই যে শুনো, তোমার মা, বাবার বয়স হইছে অনেক তো ঊনাদের বসিয়ে বসিয়ে খাওয়ানো টাকা নস্ট ছাড়া আর কিছুই না। তাছাড়া আমাদের নতুন বাসায় ঊনারা বড্ড বেমানান।
: তো মা, বাবা থাকবে কই?
: বৃদ্ধাশ্রমে দিয়ে এসো। ওখানে ঐ বয়সের আরো মানুষ আছে, ভালো থাকবে।
: এটা কি ঠিক হবে?
: বি প্রাক্টিক্যাল……

: দোস্ত, আমার না একটা হেল্প লাগবে রে…তুই তো আমার বেস্ট ফ্রেন্ড। করবি না হেল্প দোস্ত?
: আরে বল না, কি হেল্প? আমরা আমরাইতো।
কিছুদিন পর ….
: কিরে শুনছিস তোর বেস্ট ফ্রেন্ড নাকি শুনলাম বিপদে পরছে শুনলাম। আর তুই এখানে যে …
: আরে থাম! এখন কেনো যাব শুধু শুধু ঝামেলায় পরতে। ক্ষতি ছাড়া এখন কোন লাভ হবে না এখানে…

স্বার্থ শব্দটা যেন এখন আমাদের রন্ধ্রে রন্ধ্রে!আমরা এখন স্ব স্ব দুনিয়াতে ব্যস্ত। এই স্বার্থকেন্দ্রিক চিন্তা করতে গিয়ে আমরাই পরিণত হতে চলেছি যন্ত্রে! যার কোন ফিল নেই। কে কাঁদলো, কে হাসলো, কিসে কস্ট পেলো সেসব দেখার কোনো সময় নেই আমাদের। এসব ভাবনা এখন আর আমাদের কল্পনার জগত ছাপিয়ে চলে যায়! তাই চোখের সামনে কাউকে কাঁদতে দেখলে, সেদিকে নজর না দিয়ে নিজেদের হাঁটার জায়গা খুঁজে নিতে শিখে গেছি আমরা! নিজেদের স্বার্থ হাসিলের বাহিরে এক পা ও চলতে নারাজ! কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য যে, যাদের জন্যে আমরা এই দুনিয়াতে পরিচিত করতে পারছি নিজেদের , সে মানুষগুলোর খবরও আমরা স্বার্থের কথা ভেবেই নেই! তারা খেলো কী খেলো না সে উত্তরটা জানতে আমরা দুইটা মিনিট ব্যয় করতে নারাজ, কিনতু যখন নিজেদের দরকার হয় তখন সেই আমরাই আবার ঘণ্টার পর ঘন্টা নির্ধিধায় কাটিয়ে দিতে পারি মিথ্যে ভালোবাসার নাটক করে!

স্বার্থের গলিতেই কেবল আমাদের বসবাস,
ক্ষণে ক্ষণে নতুন রূপ দিয়ে যায় তারই আভাস!

তাহলে কি সম্পর্কগুলো কি এভাবেই হারিয়ে যাবে অতলে? গিভ এন্ড টেইকের বেড়াজালটা কি এতটাই মজবুত যে ঐ বেড়াজাল টপকে এপাশে এসে মনের ভিতরকার কথা শুনার চেস্টা করা যায় না? আর কতদিন আমরা শুধু আত্মস্বার্থে মজে থাকবো? কবে আসবে সেদিন যেদিন কথায় থাকবে না কোন লোক দেখানো অতিরঞ্জণ, থাকবে না কোন পূর্ব প্রস্তুতি কিংবা ফিরতি কিছু পাওয়ার প্রত্যাশা? কবে আসবে সেদিন? আদৌ কি আসবে?…..


আমাদের উৎসাহিত করুনঃ




সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। এই লেখাটি কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয় ।

লেখক সম্পর্কেঃ

বুনন সম্পর্কিত তথ্যঃ